সংবাদ শিরোনামঃ
প্রচ্ছদ / গাইবান্ধার খবর / আজ ৩ আগস্ট মহিমাগঞ্জের শোকাবহ দিন

আজ ৩ আগস্ট মহিমাগঞ্জের শোকাবহ দিন

মনজুর হাবীব মনজু, গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি : আজ ৩ আগস্ট। মহিমাগঞ্জের ইতিহাসে একটি শোকাবহ দিন। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে আজকের এই দিনে তৎকালীন রংপুর জেলার গাইবান্ধা মহুকুমার গোবিন্দগঞ্জ থানার শিল্প ও বাণিজ্যিক এলাকা মহিমাগঞ্জের তিন কৃতি সন্তানকে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী ও তাদের এ দেশীয় দালালরা বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে নির্মম ভাবে হত্যা করে। মহিমাগঞ্জ ইউনিয়নের সাবেক দুই চেয়ারম্যান শহীদ এমাদ উদ্দিন আকন্দ ও শহীদ আব্দুস সোবহান আকন্দ এবং বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শহীদ আব্দুল কাদের সরকারকে ওই দিন রাতে তাদের বাসা থেকে স্থানীয় চিহ্নিত রাজাকারদের মাধ্যমে তুলে নিয়ে যায় হানাদাররা। স্থানীয় রংপুর চিনিকল অতিথি ভবনে তাদের স্থাপিত কাম্পে প্রথমে সকলকে একত্রিত করে আটকে রাখে তারা। পরে গভীর রাতে তাদের গোবিন্দগঞ্জ-মহিমাগঞ্জ সড়কের মালঞ্চা নামক স্থানে নিয়ে গিয়ে নিজ হাতে কবর খ ুঁড়তে বাধ্য করে। সেই কবরে নামিয়ে তাদের গুলি করে হত্যা করে পাকিস্তানী সৈন্য ও স্থানীয় চিহ্নিত দালালরা মাটি চাপা দেয়। পরদিন ৪ আগস্ট শহীদের স্বজনরা মাটি খুঁড়ে তাদের মৃতদেহ ৩টি উদ্ধার করে একপ্রকার গোপনেই দাফন করেন ভিন্ন ভিন্ন স্থানে ।
শহীদ পরিবারের সদস্যরা অভিয়োগ করেছেন, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এত বড় একটি আতœত্যাগের ঘটনার আজও মেলেনি কোন স্বীকৃতি। এমন কি এলাকার লোকজনও দিনটিকে ধীরে ধীরে ভুলে যেতে বসেছে। তবে গত ২০১২ সালের আজকের দিনে মহিমাগঞ্জ অধ্যাপক সমিতি ও পাঠাগার নামের একটি প্রতিষ্ঠানের প্রচেষ্টায় স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ তিন শহীদের নামে এখানকার তিনটি সড়কের নামকরণ করে। কিন্তু ফলকগুলো বর্তমানে অস্তিত্বহীন। বিভিন্ন ভাবে এ ফলক তিনটিকে নষ্ট করে ফেলা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ছাড়া মহিমাগঞ্জের এই তিন শহীদের স্মৃতি রক্ষায় কয়েক বছর আগে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা পরিষদ থেকে তাদের হত্যাকান্ডের স্থানটিতে একটি স্মৃতি ফলক স্থাপন করা হয়েছে। সেটিও হারিয়ে যাওয়ার পথে। কয়েক বছর আগে এই তিন শহীদের স¥রণে মহিমাগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় ছোট একটি শহীদ মিনার স্থাপন করা হয়েছে। সেটিও এখন অনেকেরই চোখের আড়ালে রয়ে যায়।
শহীদ পরিবারের সন্তানরা মহিমাগঞ্জের তিন সূর্য্যসন্তান শহীদ এমাদ উদ্দিন আকন্দ, শহীদ আব্দুল কাদের সরকার ও শহীদ আব্দুস সোবহান আকন্দের আত্মত্যাগের মূল্যায়ণ দাবী করেছেন বর্তমান সরকারের কাছে।

Check Also

করোনার থাবায় জবুথবু কোচাশহর পালপাড়ার মৃৎশিল্পীরা

মনজুর হাবীব মনজু, গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) : ঐতিহ্যবাহী মৃৎসামগ্রী উৎপাদনে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে সুদিন ফিরিয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eight + 15 =