সংবাদ শিরোনামঃ
প্রচ্ছদ / বগুড়ার খবর / আরো ব্যাপক উন্নয়ন করতে পুনরায় পাকুল্লা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হতে চান জুলফিকার রহমান শান্ত

আরো ব্যাপক উন্নয়ন করতে পুনরায় পাকুল্লা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হতে চান জুলফিকার রহমান শান্ত

ইকবাল কবির লেমনঃ আরো ব্যাপক উন্নয়ন করতে পুনরায় পাকুল্লা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হতে চান বগুড়া শহর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি, বগুড়া কমার্স কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি ও বগুড়া জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ও পাকুল্লা ইউপি’র বর্তমান চেয়ারম্যান, জুলফিকার রহমান শান্ত। আওয়ামী ঘরানার মানুষ হিসেবে দলটি থেকেই পুনরায় চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীতা প্রত্যাশা করে নিয়মিত গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি।
বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার যমুনা তীরবর্তী প্রাকৃতিক দুর্যোগ কবলিত একটি ইউনিয়ন পাকুল্লা। এই ইউনিয়টির সাধারণ মানুষ প্রকৃতির নির্মমতার সাথে যুদ্ধ করে যাপন করে তাদের জীবন। ২০১৬ সালে তেমনি একটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে নৌকা প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করেছিলেন জুলফিকার রহমান শান্ত। বিপুল ভোটে ইউনিয়টির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। এবারের নির্বাচনেও নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন প্রত্যাশা করেন তিনি।
চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর গত পাঁচ বছরে বিভিন্ন সময় প্রয়াত সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের সার্বিক সহায়তায় পাকুল্লা ইউনিয়নের উন্নয়নে চেয়ারম্যান জুলফিকার রহমান শান্ত নিয়েছেন নানা উদ্যোগ। এলাকার শিক্ষা, যোগাযোগসহ এমন কোন ক্ষেত্র নেই যেখানে তাঁর উদ্যোগী ভূমিকা নেই। অসহায় মানুষের আবাসনের লক্ষ্যে তাঁর ইউনিয়নে সুজাইতপুর-১ গুচ্ছগ্রাম, সুজাইতপুর-২ গুচ্ছগ্রাম ও খাটিয়ামারী গুচ্ছগ্রাম বাস্তবায়িত হয়েছে। যেখানে আবাসহীন মানুষ পেয়েছে স্থায়ী ঠিকানা। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী আরও কিছু মানুষের জন্য করেছেন গৃহের ব্যবস্থা। পুরো ইউনিয়নে তাঁর তত্বাবধানে বিদ্যুৎ সুবিধা পেয়েছে সাধারণ মানুষ। আর প্রত্যন্ত চরা লে যেখানে বিদ্যুৎ সুবিধা পৌঁছানো সম্ভব হয়নি সৌর বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত করেছেন সেই চরগুলোকেও। চরে বসবাসরত মানুষের জীবনমান উন্নয়নে ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে বাছাইকৃত মানুষদের গরু-ছাগল প্রদান ও সেগুলোকে লালন-পালন করার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ প্রদানের ব্যবস্থা করেছেন। ইউনিয়নটির প্রয়োজনীয় রাস্তাঘাট পাকাকরণ ও সিসি ঢালাইকরণে তাঁর উদ্যোগ চোখে পড়ার মতো। সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় ভিজিডি, ভিজিএফ,বয়স্কভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা দেয়ার কার্যক্রমগুলোকে তিনি যেভাবে শতভাগ সেবাধর্মী করেছেন তা উল্লেখ করার মতো। এ কার্যক্রমগুলো এখনো চলমান রয়েছে। শিক্ষার মানোন্নয়নে, মাদকমুক্ত এলাকা গড়তে ও খেলাধুলার বিকাশে তিনি পাকুল্লা ইউনিয়নে গ্রহণ করেছেন বিশেষ বিশেষ উদ্যোগ।
২০২১ সালের আসন্ন ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে পুনরায় অংশগ্রহণ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে জুলফিকার রহমান শান্ত জানান, ‘যমুনা নদী ভাঙ্গনকবলিত পূর্ব বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার পাকুল্লা ইউনিয়নের খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষের সেবায় নিরন্তর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। নাগরিকদের শতভাগ সেবা দিয়ে, জনকল্যাণ করে আমি এ ইউনিয়নটিকে বাংলাদেশের প্রথম সারির মডেল ইউনিয়নে পরিণত করতে চাই। সে লক্ষে সরকারের সহায়তা নিয়ে, গণমানুষকে সাথে নিয়ে চালিয়ে যাচ্ছি নিরন্তর প্রচেষ্টা। চলমান কাজগুলোকে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এবং জনমানুষের কল্যাণে আরও বৃহত্তর কিছু করতে, পাকুল্লাকে মডেল ইউনিয়নে পরিণত করতে আগামী নির্বাচনে পুনরায় চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে চাই। আশাকরি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ড আমাকে মনোনয়ন দেবে এবং পুনরায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে আমি পাকুল্লার খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষের কল্যাণে নিজেকে সম্পৃক্ত করতে পারবো।’

Check Also

সোনাতলায় ভাসমান অবস্থায় পাওয়া গেল নবজাতকের লাশ

ইকবাল কবির লেমনঃ বগুড়ার সোনাতলায় মন্ডমালা কালিমন্দির সংলগ্ন বেইলি ব্রিজের নিচে ভাসমান অবস্থায় পাওয়া গেছে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × 2 =