সংবাদ শিরোনামঃ
প্রচ্ছদ / বগুড়ার খবর / গাবতলীর ডাকুমারা হাট ও তরণীর হাট ইজারায় অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

গাবতলীর ডাকুমারা হাট ও তরণীর হাট ইজারায় অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

মো. আব্দুল ওয়াদুদ, বগুড়া প্রতিনিধি : বগুড়ার গাবতলী উপজেলার ঐতিহ্যবাহী ডাকুমারা হাট ও তরণীর হাট ইজারায় অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে সরকারের কোটি টাকারও বেশি ক্ষতি বা আত্মসাৎ করা হয়েছে বলে অভিযোগি পাওয়া গেছে। হাট দু’টির সাবেক ইজারাদার মোঃ আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ হাসান রানা ও মো: ওয়াজেদ হোসেন (সাখা) মঙ্গলবার বগুড়া প্রেসক্লাবে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন। তারা বলেন ইতোমধ্যে এ বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এ বিষয়ে অভিযোগও করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ হাসান রানা বলেন গত ১৪ ফেব্রুয়ারি দাখিলকৃত ডাকুমারা হাটের ১ কোটি ৮৪ লাখ ৯০ হাজার টাকার দরপত্রটি উপজেলা পরিষদ কর্তৃক সর্বোচ্চ দরদাতা হিসাবে গৃহীত হয় এবং তৎপ্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্বাক্ষরিত গত ২৫ ফেব্রুয়ারির এক পত্রে ওই হাটের ইজারা গ্রহণকারী বগুড়ার গাবতলী উপজেলার দক্ষিণপাড়া গ্রামের আহসান হাবিব সেলিমকে ৪ মার্চের মধ্যে হাটের ৫শতাংশ আয়কর, ১৫ শতাংশ ভ্যাট, ৫ শতাংশ জামানত এবং হাটের ইজারা মূল্যের ৭৫ শতাংশ অর্থ ১ কোটি ৩৮ লাখ ৬৭ হাজার ৫০০ টাকা জমা দিতে বলা হয়। এরপর থেকে ইজারাদার হিসেবে অনুমোদনপ্রাপ্ত আহসান হাবিব সেলিম ওই হাট থেকে যথারীতি টোল ও খাজনা আদায় করে আসছেন। পরবর্তীতে জানা যায় যে, উক্ত আহসান হাবিব সেলিম হাটের আয়কর, ভ্যাট, জামানত ও অবশিষ্ট ইজারামূল্য পরিশোধ না করেই অবৈধভাবে হাট থেকে টোল আদায় অব্যাহন রেখেছেন। এমনকি যথাসময়ে বর্ণিত অর্থ প্রদানের জন্য তার দাখিলকৃত জামানত হিসেবে জমাকৃত ৩০ শতাংশ অর্থ সরকারের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করার বিধান থাকলেও তা করা হয়নি। এ বিষয়ে গাবতলী ইউএনও অফিসের সংশ্লিষ্ট শাখায় খোঁজ নিলে মৌখিকভাবে জানানো হয়, উক্ত ইজারাদার সমুদয় অর্থ যথাসময়ে পরিশোধ করেছেন। কিন্তু কোন্ দিন, কতটাকা, কী ভাবে সে টাকা জমা দেয়া হয়েছে ইত্যাদি বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাওয়া হলে তারা আর কিছু জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এবিষয়ে খোঁজ নিতে গিয়ে আরও জানা যায় যে, উক্ত আহসান হাবিব সেলিম, ইউএনও অফিসের কতিপয় দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা-কর্মচারিসহ হাট ইজারা কমিটির যোগসাজসে হাট ইজারার নামে সরকারের কোটি টাকারও বেশি টাকার রাজস্ব ক্ষতি বা আতত্মসাৎ করে নিজেরা লাভবান হওয়ার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছেন। এ অবস্থায় গত ৩০ জুন তথ্য অধিকার (তথ্য প্রাপ্তি সংক্রান্ত) বিধিমালা, ২০০৯ এর (৩) ধারা অনুযায়ী উপরোক্ত বিষয়ের বিস্তারিত তথ্যের পাশাপাশি আহসান হাবিব সেলিম আয়কর, ভ্যাট, জামানত ও অবশিষ্ট ইজারামূল্য পরিশোধ পরিশোধ না করে থাকলে তার বিরুদ্ধে কোন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে কি না এবং নেয়া হলেও কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে, সে ব্যাপারে তথ্য পাওয়ার জন্য নির্ধারিত ফরম্যাটে আবেদন করেন। এতে তরণীর হাট সম্পর্কেও অনুরূপ তথ্য চাওয়া হয়। কিন্তু সংশ্লিষ্ট দফতর থেকে এই আবেদন নিয়ে রিসিভ কপি দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তিনি ওই দিনই রেজিস্ট্রি ডাকের মাধ্যমে আবেদনটি পাঠান। এর পরিপ্রেক্ষিতে ইউএনও অফিসের প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা শামীমা আক্তারের ১১ জুলাই স্বাক্ষর করা প্রদানকৃত তথ্যপত্রে চাহিদা অনুযায়ী বিস্তারিত তথ্য না দিয়ে দায়সারা গোছের তথ্য প্রদান করা হয়েছে। এতেই প্রতীয়মান হয়েছে, বিস্তারিতভাবে সঠিত তথ্য দিলে এ ব্যাপারে হওয়া অনিয়ম ও দুর্নীতির বিষয়টি প্রকাশ হয়ে পড়বে। পরে আরও জানা যায় যে ডাকুমারা হাটের ইজারা অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে চর্তুথ ডাক হিসেবে সংশ্লিষ্ট ইজারাদারকে ৯১ লাখ ১১ হাজার ১১১ টাকায় ইজারা প্রদান করা হয়েছে, যা গোপনে করা হয়েছে। স্বভাবতই প্রশ্ন উঠে যে, প্রথম ডাক যদি যথাসময়ে অর্থ জমা না হওয়ার জন্য বাতিল করাও হয়, তা হলে দ্বিতীয় ও তৃতীয় ডাক কীভাবে হলো, কয়জন অংশ নিলো এবং তা কেন বাতিল করা হলো, তা স্পষ্ট করে জানাচ্ছে না সংশ্লিষ্ট দফতর। আর তৃতীয় ডাকও যদি যৌক্তিক কারণে বাতিল করা হয়, তা হলে হাট-বাজার ইজারার বিধিমালা ২.১০ অনুযায়ী এ বিষয়ে জেলা প্রশাসকের সিদ্ধান্ত মোতাবেক বিষয়টি নিষ্পত্তি করতে হবে। জেলা প্রশাসকের সংশ্লিষ্ট বিভাগে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলা প্রশাসকের কাছ থেকে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত বা অনুমতি নেয়া হয়নি। এ রকম বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে ডাকুমারা হাটই শুধু নয়, তরণীহাটেরও ইজারা প্রদান করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয় এ ব্যাপারে সুষ্ঠু তদন্ত হলে এই হাট দু’টির ব্যাপারে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির বিষয়ই শুধু নয়, আরও অনেক দুর্নীতি-অনিয়মের বিষয় উন্মোচিত হবে। তাই এই হাট দু’টি ইজারার নামে, সরকারের কোটি টাকারও বেশি রাজস্ব ক্ষতি বা আত্মসাৎ করার অপচেষ্টা রোধ করে তা রক্ষাসহ এ অশুভ কাজের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

Check Also

রোটারী ক্লাব অব বগুড়ার উদ্যোগে বগুড়ায় বৃক্ষরোপন কর্মসূচী পালিত

মোঃ আব্দুল ওয়াদুদ,বগুড়া প্রতিনিধিঃ মঙ্গলবার বেলা ১১ টায় যথাযত স্বাস্থ্যবিধি মেনে বগুড়া সরকারি আজিজুল হক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seven + four =