সংবাদ শিরোনামঃ
প্রচ্ছদ / গাইবান্ধার খবর / গোবিন্দগঞ্জের কোচাশহরে দায়সারাভাবে শহিদ দিবস পালনঃ মিনারের গায়ে পুষ্পস্তবক, বেদীতে কুকুরের অবস্থান

গোবিন্দগঞ্জের কোচাশহরে দায়সারাভাবে শহিদ দিবস পালনঃ মিনারের গায়ে পুষ্পস্তবক, বেদীতে কুকুরের অবস্থান

মনজুর হাবীব মনজু, গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি : মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ছিল শুক্রবার। সারা দেশের সাথে যথাযোগ্য মর্যাদায় দিনটি পালিত হয়েছে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায়। কিন্তু দায়সারাভাবে দিনটি পালনের একটি নিকৃষ্ট উদাহরণ তৈরি হয়েছে উপজেলার কোচাশহর ইউনিয়নের কোচাশহর বন্দরে। এখানকার একমাত্র শহিদ মিনারটিকে অযত্ন, অবহেলায় সারা বছর ফেলে রাখলেও বিশেষ দিনটিতেও নেয়া হয়নি কোন সংস্কার বা পরিচ্ছন্নতার ব্যবস্থা। গোবিন্দগঞ্জ-মহিমাগঞ্জ-ফাঁসিতলা সড়কের ত্রিমোহনা হওয়ার কারণে শহিদ মিনারটিকে সারা বছরই ব্যবহার করা হয় সিএনজি চালিত অটোরিক্সা ও ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সার অস্থায়ী স্ট্যান্ড হিসেবে। এমনকি এর মূল বেদীটিকে প্রায়ই ব্যবহার করা হয় স্ট্যান্ড পরিচালনাকারী চেইন মাস্টারদের বসার স্থান হিসেবে।
দেশের অন্যতম বৃহৎ শীতবস্ত্রের উৎপাদনকারী এ এলাকার প্রধান বাজার কোচাশহর। বাণিজ্যিক কারণে অর্থনৈতিক উন্নয়ণের পাশাপাশি এখানে গড়ে উঠেছে স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসাসহ বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। কিন্তু একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেও নেই শহিদ মিনার। কয়েক বছর আগে বর্তমান সরকারের অর্থানুকুল্যে বন্দরের প্রাণকেন্দ্রে তিন রাস্তার মোড়ে গড়ে ওঠে একমাত্র শহিদ মিনারটি। কিন্তু মূল চেতনার বিপরীতে শহীদ মিনারটির পবিত্রতা রক্ষার বদলে এটিকে চরম নোংরা করে অপব্যবহার করা হয় এটিকে বলে অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী। গোবিন্দগঞ্জ-মহিমাগঞ্জ সড়কের কোচাশহর বন্দরের প্রাণকেন্দ্রের এ শহিদ মিনারটি সব সময় অপরিচ্ছন্ন অবস্থায় পড়ে থাকে। ঢেকে রাখা হয় নানা প্রকার পোস্টার-ব্যানার-ফেস্টুনে। কুকুর-বিড়ালের অবাধ বিচরণ থাকে এর মূল বেদীতে। চারদিকের তিন দিকেই ঘিরে থাকে নানা যানবাহনে।
গতকাল শুক্রবার সকাল ১০টায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, কোচাশহরের একমাত্র শহিদ মিনারের মূল বেদীতে সকালে পানি ঢেলে দিয়ে দায়সারাভাবে পরিচ্ছন্নতা সম্পন্নের পর স্থানীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে কয়েকটি পুষ্পস্তবক রেখে গেলেও কিছুক্ষণ পরেই আবার অস্থায়ী সিএনজি স্ট্যান্ডে পরিণত হয়েছে এটি। স্থানীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর নামাঙ্কিত পুষ্পস্তবকগুলো মিনারের গায়ে শোভা পেলেও মূল বেদীতে শুয়ে আছে একটি কুকুর। বেদী পরিচ্ছন্নতার জন্য ব্যবহৃত পানি না শুকোতেই এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।
কোচাশহর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ইউনিয়নের একমাত্র এ শহিদ মিনারটির অপরিচ্ছন্নতা ও অব্যবস্থাপনার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, অচিরেই এ অবস্থার পরিবর্তনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Check Also

সাঘাটায় গভীর রাতে কৃষকের পাকা ধান কেটে নিয়ে গেছে দূর্বৃত্তরা

আজহারুল ইসলাম, সাঘাটা(গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার বগারভিটা গ্রামে গত মঙ্গলবার দিবাগত গভীর রাতে দুর্বৃত্তরা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × 1 =