সংবাদ শিরোনামঃ
প্রচ্ছদ / খেলাধুলা / নেইমার এমবাপ্পেদের কাঁদিয়ে চ্যাম্পিয়ন বায়ার্ন

নেইমার এমবাপ্পেদের কাঁদিয়ে চ্যাম্পিয়ন বায়ার্ন

ইমরান এইচ মণ্ডল, বাঙালি বার্তাঃ পুরো টুর্নামেন্টে অপরাজিত থেকে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জিতলো জার্মান পরাশক্তি। রোববার রাতে পর্তুগালের লিসবনে অনুষ্ঠিত ফাইনালে ফরাসি ক্লাব প্যারিস সেন্ট জার্মেইকে ১-০ গোলে হারিয়ে দীর্ঘ ৭ বছর পর চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা উঁচিয়ে ধরেছে বাভারিয়ানরা। ম্যাচের ফলাফল নির্ধারণী একমাত্র গোলটি করেন বায়ার্ন তারকা কিংসলে কোমান।

আক্রমণাত্মক ফুটবলে অদম্য হয়ে ওঠা বায়ার্ন চলতি মৌসুমে সম্ভাব্য সবকটি শিরোপাই ঘরে তুলল। ২০২০-এ কোনো ম্যাচ না হারা দলটি এই নিয়ে টানা ২১ ম্যাচ জয়ের পথে উঁচিয়ে ধরল বুন্দেসলিগা, জার্মান কাপ ও এই চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা।

পর্তুগালের লিসবনে রোববার রাতে ম্যাচের ১৬ মিনিটে নেইমার সুযোগ পেয়েছিলেন গোলের। কিন্তু তার নেওয়া শট দুইবার ফেরে বায়ার্নের গোলরক্ষক ম্যানুয়েল নয়্যারের পায়ে লেগে। ২২ মিনিটে বায়ার্নের রবার্ট লিওয়ানডোস্কির নেওয়া শট পিএসজির কেইলর নাভাস ধরতে পারেননি। নিশ্চিত গোল হতে পারতো। কিন্তু ভাগ্যের শিকে ছিড়েনি পোল্যান্ডের এই ফুটবলারের। তার নেওয়া শট পোস্টে লেগে ফিরে আসে।

২৪ মিনিটে নিশ্চিত গোলের সুযোগ পেয়েছিলেন পিএসজি তারকা অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়া। কিন্তু মিস করেন এই আর্জেন্টাইন। তার নেওয়া শট বারের উপর দিয়ে চলে যায়। ৩০ মিনেটে লিওয়ানডোস্কি আরো একটি গোলের সুযোগ পেয়েছিলেন। এ সময় তার নেওয়া হেড পাঞ্চ করে ফেরান নাভাস। প্রথমার্ধের শেষ মুহূর্তে ডি বক্সের মধ্যে গোলরক্ষকে একা পেয়েছিলেন কিলিয়ান এমবাপে। কিন্তু তিনি সরাসরি মেরে দেন নয়্যারের পায়ে!

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে মাঝমাঠের বাইলাইনে নেইমারকে বায়ার্নের জিনাব্রি অহেতুক ফাউল করলে দু’পক্ষের মাঝে উত্তেজনা ছড়ায়। জিনাব্রি ও পিএসজির লেয়ান্দ্রো পারেদেসকে হলুদ কার্ড দেখান রেফারি।

গোছানো এক আক্রমণে ৫৯তম মিনিটে এগিয়ে যায় বায়ার্ন। জসুয়া কিমিচের ক্রসে লাফিয়ে কোনাকুনি হেডে ঠিকানা খুঁজে নেন কোমান।

দুই মিনিট পর ব্যবধান দ্বিগুণ করার সুযোগ তৈরি করেছিলেন কোমান। তবে তার ভলি রুখে দেন ডিফেন্ডার থিয়াগো সিলভা। ৭০তম মিনিটে কাছ থেকে মার্কিনিয়োসের দুর্বল শট পা দিয়ে ঠেকান নয়্যার।

এরপর আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে জমে ওঠে শিরোপার লড়াই। ৭০তম মিনিটে ডি মারিয়ার পাসে কাছের পোস্টে নেওয়া মার্কুইনহোসের দুর্বল শট অনায়াসে পা দিয়ে রুখে দেন নয়্যার।

বদলি নামা এরিক ম্যাক্সিম চুপো-মোটিং শেষদিকে পেয়েছিলেন সমতায় ফেরানোর ভালো দুটি সুযোগ।। কিন্তু একবারও বলে পা ছোঁয়াতে পারেননি তিনি। তাতে হারের ক্ষত নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় টমাস টুখেলে দলকে।

Check Also

শেষের রোমাঞ্চে ইন্টারকে হারাল রিয়াল

ইমরান এইচ মণ্ডল,বাঙালি বার্তাঃ দুই গোলে এগিয়ে থেকেও পয়েন্ট হারাতে বসেছিল রিয়াল মাদ্রিদ। বদলি হিসেবে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seventeen − ten =