সংবাদ শিরোনামঃ
প্রচ্ছদ / গাইবান্ধার খবর / পলাশবাড়ীতে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট হতে লাগা আগুনে পুড়লো ঝুট-তুলা গুদাম

পলাশবাড়ীতে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট হতে লাগা আগুনে পুড়লো ঝুট-তুলা গুদাম

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধাঃ গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী পৌরশহরের হরিণমারী গ্রামে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিটে হতে সূত্রপাত হওয়া আগুনে ঝুট-তুলা গুদাম পুড়ে ভস্মিভূত ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।
গাইবান্ধা সিভিল ডিফেন্স ও ফায়ার সার্ভিসের একটি টীম যথাসময় ঘটনাস্থলে আগুন নিভাতে সক্ষম হলেও তুলার কারনে নিমিষেই পুড়ে ছাই হয়ে যায়।তবে জ্বলন্ত আগুনের লেলিহান শিখা ছড়িয়ে না পড়ার কারণে আশে-পাশের বেশ কয়েকটি স্থাপনাসহ বসতবাড়ী সমূহ সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতির কবল থেকে রক্ষা পেয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও থানা পুলিশ সূত্র জানায়,পৌরশহরের ওইস্থানে রশিদুন্নবী চাঁন মিয়ার একটি গুদাম প্রায় ৬ মাস আগে ভাড়া নিয়ে পৌরশহরের বাড়ইপাড়া গ্রামের চাঁন মিয়ার ছেলে মতিয়ার রহমান ঝুট এবং তুলা ব্যবসা করে আসছিল। আজ ৫ মার্চ বৃহস্পতিবার বিকেল ৫ টার দিকে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত ঘটে বিদ্যুত সঞ্চালন তার বেয়ে জ্বলন্ত আগুনের লেলিহান শিখা গুদামের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে। এতে গুদামে রাখা ঝুঁট-তুলা মুহুর্ত্বেই পুড়ে ভস্মিভূত হয়ে যায়।

আগুন লাগার খবরে প্রথমতঃ স্থানীয়রা এবং পরে খবর পেয়ে গাইবান্ধা জেলা সদর থেকে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সম হয়।জীবন-জীবিকা নির্বাহে একমাত্র আয়ের উৎস মূল্যবান তুলা ভস্মিভূত হওয়ায় ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারটি পথে বসার উপক্রম হয়ে পড়েছে।ক্ষতিগ্রস্থ মতিয়ার সম্প্রতি কৃষি জমি বিক্রয়সহ এনজিও’র নিকট ঋণ নিয়ে ওই ব্যবসা পরিচালনা করছিলেন। এঘটনার পর সরকারি-বেসরকারি সাহায্য-সহযোগিতা পেতে পরিবারটি উপজেলা ও জেলা প্রশাসনসহ দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষ ছাড়াও দানশীল-পরোপকারী ও আনাতরিক ব্যক্তিবর্গ ছাড়াও জন প্রতিনিধিদের নিকট মানবিক হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

পলাশবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মেজবাউল হোসেন ও থানা অফিসার ইনচার্জ মাসুদুর রহমান মাসুদ,স্থানীয় পর্যায় বিভিন্ন দলীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।এসময় পরিদর্শনকারীরা ক্ষতিগ্রস্থ মতিয়ারের পরিবারকে সম্ভাব্য সহায়তাদানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

Check Also

সাঘাটায় গভীর রাতে সন্ত্রাসী হামলায় বৃদ্ধা আহত

জয়নুল আবেদীনসাঘাটা প্রতিনিধিঃ সাঘাটায় গভীর রাতে সন্ত্রাসী হামলায় মায়েরা বেগম (৭০) নাম এক বৃদ্ধ মহিলা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × 3 =