সংবাদ শিরোনামঃ
প্রচ্ছদ / বগুড়ার খবর / বগুড়ায় করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত দুটোই বেড়েছে

বগুড়ায় করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত দুটোই বেড়েছে

মোঃ আব্দুল ওয়াদুদ ,বগুড়া প্রতিনিধিঃ
বগুড়ায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যু দুটোই বেড়েছে। এ সময়ে আরও ৭ জনের মৃত্যু ও নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১৫২ জন। মঙ্গলবার বগুড়ার ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মোস্তাফিজুর রহমান তুহিন এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় বগুড়ায় ৩৬৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৫২ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। আক্রান্তের হার শতকরা ৪১ দশমিক ৩০ ভাগ। একই সময়ে সুস্থ হয়েছেন ৫৯ জন। এছাড়াও গত ২৪ ঘণ্টায় বগুড়ার বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৪ নারীসহ ৭জন মারা গেছেন। এদের মধ্যে বগুড়ার ৩ জন, পাবনার ১জন, নওগাঁর ১ জন, রংপুরের ১ জন এবং জয়পুর হাটের ১ জন। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৩ হাজার ৭১২ জন, সুস্থ হয়েছেন ১২ হাজার ৫৫১ জন, মারা গেছেন ৩৮৬ জন ও চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৭৭৫ জন ।
বগুড়ায় করোনা পরিস্থিতি দিন দিন খারাপের দিকে যাওয়ার কারনে চিকিৎসা ব্যবস্থা সংকটের মুখে পড়েছে। বেড না পেয়ে অনেক রোগী মেঝেতে বা বারান্দায় চিকিৎসা নিচ্ছে। এতে রোগীদের দূভোর্গের পাশাপশি ডাক্তার , নার্সদের হিমশিম খেতে হচ্ছে । তাই সংকট উত্তরনে সরকারী ও বেসরকারী হাসপাতালে বেড সংখ্যা বুদ্ধি, নতুন ওয়ার্ড চালুসহ চিকিৎসা ব্যবস্থা সম্প্রসারনের নানা উদ্যোগ নিয়েছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। করোনা প্রতিরোধ ও সংক্রমনরোধ গঠিত জেলা কমিটির গত রোববারের অনলাইন সভায় স্বাস্থ্য বিভাগকে এসব পরামর্শ দেন জেলা প্রশাসক ও কমিটির সভাপতি মোঃ জিয়াউল হক। সভায় জানানো হয়, শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বিদ্যমান ১১৬টি বেড নিয়ে গঠিত করোনা ওয়ার্ডে কোন বেড ফাঁকা নেই বরং অতিরিক্ত ভর্তি রয়েছে। তাই এখানে আরো ৬০-৭০টি বেড জরুরী ভিত্তিতে বাড়াতে হবে। সরকারি ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট সরকারী মোহাম্মাদ আলী হাসপাতালের ২০০ বেডের সব বেডেই রোগী ভর্তি রয়েছে। এ ছাড়া বেসরকারি টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ হাহসপাতালে ১৬০ বেডের মধ্যে অর্ধেকের বেশী রোগী ভর্তি রয়েছে। সেখানে আরো ৪০ টি বেড বাড়ানোর তাগিদ দেয়া হয়েছে। এ ছাড়া সদরের বেসরকারী ডায়াবেটিক হাসপাতাল ,মিশন হাসপাতালে করোনা ওয়ার্ড চালু এবং সদরের পাশের কাহালু, শাজাহানপুর ও গাবতলী উপজেলা হাসপাতালে করোনা ওয়ার্ড চালুর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
বগুড়া জেলা প্রশাসক বলেছেন, ‘এসব উদ্যোগের পাশাপাশি টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা ব্যয় কমানোর অনুরোধ করা হয়েছে। এতে সাধারন মানুষ চিকিৎসা নিতে আগ্রহী হবেন এবং সরকারী হাসপাতালে রোগীর চাপও কমবে।’

Check Also

সম্পন্নের পথে স্বপ্নের সোনাতলা প্রেসক্লাব ভবন

ইকবাল কবির লেমনঃ বগুড়া’র সোনাতলা উপজেলার সাংবাদিকদের আকাক্সিক্ষত ও স্বপ্নের প্রেসক্লাব ভবন নির্মাণ কাজ সম্পন্নের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seven − one =