সংবাদ শিরোনামঃ
প্রচ্ছদ / বগুড়ার খবর / বগুড়ায় প্রগতিশীল ছাত্রজোটের বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত

বগুড়ায় প্রগতিশীল ছাত্রজোটের বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত

খবর বিজ্ঞপ্তিঃ  লেখক মুশতাক আহমেদের রাষ্ট্রীয় হত্যাকাণ্ডের বিচার,ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল ও শাহবাগে মশাল মিছিলে হামলা এবং গ্রেফতারকৃত ছাত্রনেতাদের মুক্তির দাবিতে ৩রা মার্চ ২০২১ ইং বুধবার সকাল ১০ টায় বগুড়ার ঐতিহাসিক সাতমাথায় প্রগতিশীল ছাত্রজোট বগুড়ার বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট বগুড়া জেলা শাখার সভাপতি ধনঞ্জয় বর্মন।সভা পরিচালনা করেন বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন বগুড়া জেলা সংসদের কোষাধ্যক্ষ বায়েজিদ রহমান।বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন বগুড়া জেলা সংসদের সাধারণ সম্পাদক মোঃ সোহানুর রহমান সোহান, সাংগঠনিক সম্পাদক ছাব্বির আহম্মেদ,ছাত্রনেতা তানবির তন্ময়,সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট সরকারি আজিজুল হক কলেজ শাখার সদস্য সচিব নিয়তি সরকার নিতু,জেলা সংগঠক সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।
বক্তারা বলেন “আওয়ামী লীগ সরকারের দমন পীড়নের অন্যতম হাতিয়ার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতারকৃত লেখক মুশতাক আহমেদ এ বছরের ২৫ ফেব্রুয়ারী মারা যান।তার অপরাধ ছিল সরকারের সমালোচনা করা।একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে যে কেউ সরকারের সমালোচনা করতে পারে।স্বৈরাচারী আওয়ামী লীগ সরকার বাক স্বাধীনতা হরণ করতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন তৈরী করেছে।প্রচন্ড অসুস্থ থাকা অবস্থায় ছয়বার জামিন চেয়েও লেখক মুশতাক জামিন পাননি।কারাগারে বিনা চিকিৎসায় এক রাষ্ট্রীয় হত্যাকান্ড দেশবাসী প্রত্যক্ষ করেছে।অথচ ব্যাংক লুটেরা,ধর্ষক সহ দাগী আসামীদের জামিন হয় এদেশে।এমনকি মুশতাক আহমেদকে হাই সিকউরিটির জেলে রাখা হয়েছিল অথচ হাইসিকিউরিটি জেলে রাখা হয় দাগী আসামীদের।মুশতাক হত্যা একটি রাষ্ট্রীয় হত্যাকান্ড বলে আমরা মনে করি।মুশতাক হত্যার প্রতিবাদ করতে গিয়ে গত ২৬ ফেব্রুয়ারী ঢাকার শাহবাগে প্রগতিশীল ছাত্র জোটের নেতাকর্মীরা পুলিশের হামলার শিকার হন এবং সাত জন নেতা কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়।তাদের বিরুদ্ধে পুলিশ হত্যাচেষ্টা সহ আরো আটটি ধারায় মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে।আমরা প্রগতিশীল ছাত্র জোটের নেতাকর্মীরদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানাচ্ছি।একই সাথে মুশতাক হত্যার প্রতিবাদ করতে গিয়ে গ্রেফতার শ্রমিক নেতা রুহুল আমিন কে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দেওয়া হয়েছে,তাকেও নিঃশর্ত মুক্তি দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।”
এছাড়া বক্তারা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন মামলায় শহিদ মুশতাকের সাথে গ্রেফতারকৃত কারাবন্দি কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরের মুক্তি,অবিলম্বে তার সুচিকিৎসা নিশ্চিতকরণ,ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সহ সকল দমন নিপীড়ণমূলক কালো আইন বাতিল এবং মুশতাক হত্যাকান্ড তদন্তের জন্য একটি স্বাধীন নিরপেক্ষ বিচার বিভাগীয় কমিশন গঠনের দাবি জানান।

Check Also

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে সোনাতলায় ২টি হোটেলের ১ হাজার টাকা জরিমানা

আব্দুর রাজ্জাক,স্টাফ রিপোর্টারঃ বগুড়ার সোনাতলায় লক ডাউনের দ্বিতীয় দিনে উপজেলার সৈয়দ আহম্মেদ কলেজ ( বটতলা) …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 × 3 =