সংবাদ শিরোনামঃ
প্রচ্ছদ / খেলাধুলা / মিরপুর টেস্টে জিম্বাবুয়েকে ইনিংস ও ১০৬ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ

মিরপুর টেস্টে জিম্বাবুয়েকে ইনিংস ও ১০৬ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ

ইমরান এইচ মণ্ডল, বাঙালি বার্তাঃ টেস্ট জিততে ভুলেই গিয়েছিল বাংলাদেশ। ৬ টেস্টে হারের পর অবশেষে জয়ের ধারায় ফিরেছে মুমিনুল হকের দল। মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে একমাত্র টেস্টে জিম্বাবুয়েকে এক ইনিংস ও ১০৬ রানে হারিয়েছে স্বাগতিকরা। দ্বিতীয় ইনিংসে জিম্বাবুয়ে গুটিয়ে গেছে ১৮৯ রানে। বাংলাদেশ সর্বশেষ টেস্ট জিতেছিল সেই ২০১৮ সালের নভেম্বরে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সেই ম্যাচটিও বাংলাদেশ ইনিংস ব্যবধানে জিতেছিল। তখন অধিনায়ক ছিলেন সাকিব আল হাসান। এবার মুমিনুল হকের নেতৃত্বে প্রথম টেস্ট জিতল বাংলাদেশ।
তৃতীয় দিন ২৯৫ রানের লিড পেয়ে বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেছে ৬ উইকেটে ৫৬০ রান তুলে। মুশফিকুর রহিমের ডাবল সেঞ্চুরি ও মুমিনুলের সেঞ্চুরিতে রানের পাহাড় গড়ে স্বাগতিকরা। তার পর তৃতীয় দিনের শেষ বিকালেই জিম্বাবুয়েকে চেপে ধরে স্বাগতিক বোলাররা। নাঈমের ঘূর্ণিতে আগের দিন বিদায় নেন দুজন। তাই চতুর্থ দিন তাদের দ্রুত গুটিয়ে দেওয়ার লক্ষ্য ছিল বাংলাদেশের। সেই পরিকল্পনায় ধীরে ধীরে এগিয়ে গেছে তাইজুল-নাঈমরা। তাইজুলের ঘূর্ণিতে শুরুতেই স্লিপে ক্যাচ উঠেছিল কেভিন কাসুজার। কিন্তু সুযোগটি পরিপূর্ণ ছিল না। তবে ১১তম ওভারে আর শেষরক্ষা হয়নি ডানহাতি ওপেনারের। তাইজুলের ঘূর্ণি বল ব্যাটের কোনায় লেগে জমা পড়ে দ্বিতীয় স্লিপে। তিনি ফিরেছেন ১০ রানে। ব্রেন্ডন টেলর থিতু হওয়ার চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু নিজের ভুলেই বড় শট খেলতে গিয়ে সাজঘরের পথ ধরেছেন। নিজের প্রথম ওভারেই তার উইকেটটি নিয়েছেন নাঈম হাসান। এই পরিস্থিতি দ্রুত সামলানোর চেষ্টা করেছেন ক্রেইগ আরভিন ও সিকান্দার রাজা। তাদের ৬০ রানের জুটিতে প্রতিরোধ গড়ার স্বপ্ন দেখছিল জিম্বাবুয়ে। কিন্তু লাঞ্চ ব্রেকের আগে অযথা রান নিতে গিয়ে আউট হয়েছেন আরভিন (৪৩)। জিম্বাবুয়ে অধিনায়ককে রান আউট করেছেন মুমিনুল। এর পরেই আসা-যাওয়ার মিছিল জিম্বাবুয়ের ইনিংসে। লাঞ্চ ব্রেকের পর পর ফিরে গেছেন সিকান্দার রাজাও। তাইজুলের ঘূর্ণিতে পুল করতে গিয়ে মিড উইকেটে ক্যাচ দিয়েছেন মুশফিকুর রহিমকে। রাজা ফিরেছেন ৩৭ রানে। এর পর টিমিসেন মারুমা ও রেজিস চাকাভা মিলে কিছুক্ষণ প্রতিরোধ গড়েন। তাদের এই প্রতিরোধ ভেঙে দেন তাইজুল। চাকাভাকে তালুবন্দী করান ১৮ রানে। নতুন নামা এইনসলে এনডিলোভুও ফিরে যান পরের ওভারে। নাঈম হাসানের এলবিডাব্লিউতে বিদায় নেন তিনি। অপরপ্রান্ত আগলে খেলতে থাকা মারুমা ফিরেছেন যোগ্য সঙ্গী না পেয়ে। তাকে ৪১ রানে তামিমের ক্যাচ বানিয়েছেন নাঈম হাসান। এই উইকেট নিয়ে ক্যারিয়ারে দ্বিতীয়বার ৫ উইকেট পূরণ করেছেন নাঈম। টিশুমাকে বিদায় দিয়ে কফিনের শেষ পেরেকটি ঠুকে দেন তাইজুল। দ্বিতীয় ইনিংসে জিম্বাবুয়ে অলআউট হয় ১৮৯ রানে। এ ইনিংসে ৮২ রানে ৫ উইকেট নিয়েছেন নাঈম, ৪টি নিয়েছেন তাইজুল।

Check Also

৩০ বছর পর ইপিএল চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল

ইমরান এইচ মণ্ডল, বাঙালি বার্তাঃ করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের জন্য সমর্থকদের ঘরে থাকার অনুরোধ করেছিল লিভারপুল। কিন্তু …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 × 1 =