সংবাদ শিরোনামঃ
প্রচ্ছদ / বগুড়ার খবর / সৈয়দ আহম্মদ কলেজ হাটঃ অনিয়মই যেখানে নিয়ম

সৈয়দ আহম্মদ কলেজ হাটঃ অনিয়মই যেখানে নিয়ম

ইকবাল কবির লেমনঃ সৈয়দ আহম্মদ কলেজ হাট বগুড়া’র সোনাতলা উপজেলার একটি ঐতিহ্যবাহী হাট। আজ থেকে ৪১ বছর আগে গুণী ব্যক্তিত্ব, সাবেক এমএলএ সৈয়দ আহম্মেদ এর নামে হাটটির যাত্রা শুরু। শুরু থেকেই অনিয়মের আশ্রয় নেয়া ৪২ বছরের গরু-ছাগলের এ হাটটি দেখলে মনে হবে অনিয়মই যেন সেখানে নিয়ম। রেল সংলগ্ন হাটটিতে প্রায়শই গরু ছাগল কেনাবেচার ব্যাপ্তি রেল লাইন পর্যন্ত প্রসারিত হয়। একারণে বেশ কয়েকবার ঘটেছে দুর্ঘটনা। করোনকালীন সময়েও অনিয়মের আধার এ হাটটিতে কোন স্বাস্থ্যবিধির বালাই ছিলনা। সরকারি সকল বিধি-বিধান অমান্য করে, সরকারি খাজনা ফাঁকি দিয়ে এখনো দিব্যি চলছে হাটটির কার্যক্রম।
নিয়মে আনতে বিশেষত, হাটটিকে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ইজারা কার্যক্রমে আনতে কয়েকদফা উদ্যোগী ভূমিকা নেয় সোনাতলা উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসন। কিন্তু আইনের ফাঁকফোঁকড়ে বারবার বিভ্রান্তিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করে হাট কর্তৃপক্ষ।
হাটটিকে যেন সরকারি ব্যবস্থাপনায় ইজারার আওতায় আনা যায় সে জন্য সর্বোচ্চ পদক্ষেপ গ্রহণ করেন সোনাতলা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাড.মিনহাদুজ্জামান লীটন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাদিয়া আফরিনও সর্বোচ্চ প্রশাসনিক চেষ্টা করেন। সফলতার মুখও দেখে সে প্রচেষ্টা। পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে হাটটির ইজারা দরপত্র আহ্বান করে উপজেলা প্রশাসন। অনিয়ম থেকে ফেরার এ প্রক্রিয়ায় সাধারণ মানুষ পায় কিছুটা স্বস্তি।
কিন্তু আবারো গুড়ে বালি। হাটটির পরিচালনাকারী ১২ জন সদস্য হাটটির ইজারা বিজ্ঞপ্তি চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট পিটিশন দায়ের করেন। রিটের শুনানী শেষে বিচারপতি এম এনায়েত রহিম গত ১২ জুলাই সৈয়দ আহম্মদ কলেজ হাটের ইজারা বিজ্ঞপ্তি এক মাসের জন্য স্থগিতাদেশ দেন। এ আদেশ স্থগিত চেয়ে ভূমি মন্ত্রণালয়ের সচিব সুপ্রিম কোর্টে সিভিল বিবিধ পিটিশন দায়ের করলে ওই পিটিশন শুনানী শেষে উক্ত হাটের ইজারা বিজ্ঞপ্তির স্থগিতাদেশ ৪ সপ্তাহের জন্য স্থগিত করার আদেশ দেন মাননীয় বিচারপতি ওবাইদুল হাসান।
এ ব্যাপারে সোনাতলা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাড. মিনহাদুজ্জামান লীটনের সাথে কথা বললে তিনি জানান, ‘ ইজারা কার্যক্রম সুসম্পন্ন করে ইজারাকারীর নিকট হাটটি বন্দোবস্ত দেয়ার পূর্ব মুহুর্ত পর্যন্ত প্রচলিত আইন ও হাট-বাজার ব্যবস্থাপনা নীতিমালা অনুযায়ী খাস আদায়ের জন্ প্রশাসনকে বিশেষভাবে অনুরোধ করা হয়েছে। আশাকরি, আগামি হাটের দিনগুলোতে প্রশাসন সেটি বাস্তবায়ন করবে।’
কোটি টাকার অবৈধ হাট বাণিজ্য বন্ধের মাধ্যমে সকল অনিয়মের অবসান হবে এবং সরকার কর্তৃক আদায়কৃত রাজস্বের একটি নির্দিষ্ট অংশে উন্নয়ন হবে সোনাতলার এমনটাই প্রত্যাশা সোনাতলা উপজেলার সাধারণ মানুষের।

 

Check Also

সারিয়াকান্দির নয়া ইউএনও’র সাথে শুভেচ্ছা বিনিময়

বগুড়ায় সারিয়াকান্দি উপজেলার নবাগত নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রেজাউল করিমের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন আমরা মুক্তিযোদ্ধার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seventeen − 8 =