সংবাদ শিরোনামঃ
প্রচ্ছদ / বগুড়ার খবর / সোনাতলায় স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণঃ সহযোগী আটক

সোনাতলায় স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণঃ সহযোগী আটক

আব্দুর রাজ্জাক, স্টাফ রিপোর্টারঃ বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার জোড়গাছা ইউনিয়নের খোদা দিলেরপাড়া গ্রামে ৯ম শ্রেণির স্কুল পড়ুয়া ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে সোনাতলা থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছে্ন। পুলিশ ওই ছাত্রীকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য বগুড়া প্রেরণ করেছে। এ ঘটনায় পুলিশ ধর্ষণকারীর সহযোগী আল-আমিন (২২)কে গ্রেফতার করেছে। আল-আমিন একই গ্রামের শফিকুল ইসলামে ছেলে।
মামলা সুত্রে জানা যায়, সোনাতলা পৌর এলাকার আগুনিয়াতাইড় গ্রামের মোস্তাফিজার রহমানের ছেলে মুছার সাথে ধর্ষণের শিকার উপজেলা্র জোড়গাছা ইউনিয়নের খোদা দিলেরপাড়া গ্রামের ওই মেয়েটির সাথে দীর্ঘদিন যাবৎ প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছে। মুছার নানাবাড়ী মেয়েটির বাড়ির পাশে। এ সুবাদে মুছা নানা বাড়িতে গিয়ে মামাতো ভাই আল-আমিনের সাহায্যে মেয়েটির সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। সম্পর্কের ফলশ্রুতিতে গত ৮ জুন মঙ্গলবার দিবাগত রাত্রী অনুমান সাড়ে দশটায় বাড়িতে বিদ্যুৎ না থাকার সুবাদে মুছা তার মামাতো ভাই আল-আমিনের সাহয্যে নিয়ে মেয়েটিকে ডেকে বাড়ির উত্তর পাশে পাট ক্ষেতে নিয়ে প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে। মেয়েটি বাড়িতে এসে ধর্ষণের বিষয়ে তার মাকে অবগত করে। ঘটনাটি উভয় পক্ষের মধ্যে রফাদফার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে মেয়ের মা বাদী হয়ে গত ১১ জুন ধর্ষক মুছা ও মুছার মামাতো ভাই (সহযোগী) আল-আমিনকে আসামী করে থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। এঘটনায় পুলিশ ওই দিনই সহযোগী আল-আমিনকে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে ১২ জুন জেল হাজতে প্রেরণ করেছে। মামলার মূল আসামী ধর্ষক মুছা পলাতক রয়েছে।
এ বিষয়ে সোনাতলা থানা অফিসার ইনচার্জ রেজাউল করিম রেজা জানান, ‘ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। ধর্ষকের সহযোগী আসামী আল-আমিনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মূল আসামী মুছাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।’

 

Check Also

শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য পরিষদ (স্কপ) বগুড়ার স্মারকলিপি পেশ

নারায়ণগঞ্জের রুপগঞ্জ উপজেলার কর্ণগোপে অবস্থিত সজীব গ্রুপের হাসেম ফুডস‘র সেজান জুস কারখানায় গত ৮ জুলাই …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

17 + thirteen =