সংবাদ শিরোনামঃ
প্রচ্ছদ / ব্যবসা-বাণিজ্য / সোনাতলায় ৩ সন্তানের জননী ইরেনা বেগমের গলায় রশি দিয়ে রহস‍্যজনক আত্মহত‍্যা

সোনাতলায় ৩ সন্তানের জননী ইরেনা বেগমের গলায় রশি দিয়ে রহস‍্যজনক আত্মহত‍্যা

আব্দুর রাজ্জাক,স্টাফ রিপোর্টারঃ বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার তেকানীচুকাই নগর ইউনিয়নের বালিয়াডাঙ্গা গ্রামে ৩ সন্তানের জননী গৃহবধূ ইরেনা বেগম গলায় রশি দিয়ে রহস‍্যজনক আত্মহত‍্যা করেছে। ইরেনা বেগম বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের আনসার সদস‍্য ছানারুলের স্থী। ৪ সেপ্টেম্বর শনিবার দিবাগত রাতে পরিবারের মধ‍্যে ঝগড়া বিবাধের ঘটনায় মধ‍্যরাতে এ রহস‍্যজনক আত্মহত‍্যার ঘটনা ঘটেছে।
৫ সেপ্টেম্বর রবিবার সকালে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে লাশটি নামিয়ে সুরতহাল শেষে মর্গে প্রেরণ করেছে। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায় ইরেনা বেগমের ছেলেভ বউয়ের সঙ্গে প্রতিনিয়ত ঝগড়া বিবাদ লেগে থাকত ইরেনার। এবিষয়ে ইরেনা বেগমের ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়া ছোট ছেলে লিয়ন জানায়, শনিবার দুপুরে তার ভাবি বৃষ্টি বেগমের সাথে তার মায়ের পারিবারিক ভাবে ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে বড় ভাই লেমনের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। তর্কাতর্কির এক পর্যায় তার বাবা ও তার মায়ের উপর চড়াও হয়। তাদের ঝগড়া বিবাধ দেখে লিয়নের জেঠা আতোয়ার রহমান, তার ভাই, ভাবি, ভাতিজা ভাতিজা বউসহ সকলকে শাসিয়ে সমাধান করে। সন্ধ‍্যায় লিয়ন খাওয়া দাওয়া শেষে ঘুমিয়ে যায়। রাত ৯ টার দেখতে পায় তার মা বাড়িতে নেই। সবাই মিলে রাত ১টা পর্যন্ত খোঁজাখুঁজি করে আবারও ঘুমিয়ে যায়। সকালে জানতে পারে তার মা ইরেনা বেগম বাড়ির পাশে ডোবায় একটি গাছে ঝুলে আছে। একথা শুনে তার বড় ভাই লেমন ও তার স্ত্রী বৃষ্টি বেগম এবং বাবা ছানা বাড়ি থেকে কোথায় চলে যায় তা লিয়ন জানেনা। এদিকে এলাকাবাসির প্রশ্ন কীভাবে গাছের এত উচুতে শাড়ি পরে উঠে একজন গৃহবধূ গলায় দড়ি দিতে পারে? সকাল থেকে উৎসুক জনতা এ ঘটনা দেখার জন‍্য ভির জমায়। এমনকি নৌকা নিয়েও নদী পথে লোকজন এক নজর দেখার জন‍্য আসে।
এবিষয়ে থানা অফিসার ইনচার্জ রেজাউল করিম রেজা জানান ভিকটিমের ভাই হেলাল বাদী হয়ে থানায় একটি অপমৃত মামলা দায়ের করেছে। মৃত‍্যূর সঠিক কারণ নির্ণয়ের জন‍্য বগুড়া শহিদ জিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

Check Also

বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় মানব পাচার সংঘবদ্ধ চক্রের দুই সদস্য গ্রেফতার

মোঃ আব্দুল ওয়াদুদ,বগুড়া প্রতিনিধিঃ শনিবার দুপচাঁচিয়া থানা পুলিশ মানব পাচার সংঘবন্ধ চক্রের দুই সদস্য আলমগীর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four + 15 =