সংবাদ শিরোনামঃ
প্রচ্ছদ / সাহিত্য-সংস্কৃতি / সোনাতলা রেলস্টেশনে উন্মুক্ত পাঠাগার ‘যোগাযোগ’ উদ্বোধন

সোনাতলা রেলস্টেশনে উন্মুক্ত পাঠাগার ‘যোগাযোগ’ উদ্বোধন

ইকবাল কবির লেমনঃ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে বগুড়ার সোনাতলা রেলওয়ে স্টেশনে উন্মুক্ত পাঠাগার ‘যোগাযোগ’ উদ্বোধন করা হয়েছে। যাত্রীদের অবসর সময়ে বই পড়ার আনন্দ দিতে উন্মেষ সাহিত্য সাময়িকী’র উদ্যোগে ও সোনাতলার অন্যতম ব্যতিক্রমী সামাজিক সংগঠন আলোর প্রদীপ এর বাস্তবায়নে এ পাঠাগারটি আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন সোনাতলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাদিয়া আফরিন। পাঠাগারটি উন্মুক্ত করে সোনাতলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিয়া আফরিন সবাইকে মহান স্বাধীনতার শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, আসলে প্রযুক্তির কল্যানে এখনকার প্রজন্মের অনেকেই বই বিমুখ হয়ে পড়ছে। যার ফলে তাদের অনেকেই জড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজে। আমরা আমেরিকা বা ইউরোপের দেশে এমন উন্মুক্ত পাঠাগার দেখতে পেলেও আমাদের দেশে এই প্রচলনটি এখনো শুরু করা যায়নি। আমি উন্মেষ সাহিত্য সাময়িকী ও আলোর প্রদীপকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি এমন একটি ভালো উদ্যোগ নেয়ায়’।
এসময় ভিডিও কলে সরাসরি যুক্ত থেকে এই উন্মুক্ত পাঠাগারের সার্বিক সাফল্য কামনা করে বইপ্রেমীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন শরীয়তপুর জেলার সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনদীপ ঘরাই। তিনি তাঁর বক্তব্য বলেন, ‘আজকে আমি এই উদ্যোগে স্বশরীরে না থাকতে পারলেও ভিডিওকলে যুক্ত হয়ে অনেক আনন্দিত। কারণ এমন একটি উদ্যোগ সত্যিই প্রশংসনীয়। সোনাতলা উপজেলা থেকে আমার অবস্থান যদিও অনেক দূরে কিন্তু স্থানীয় এমন একটি উদ্যোগের খবর পেয়ে নিজের সাধ্যমত সেখানে এই কাজের সাথে নিজেকে সম্পৃক্ত করেত চেষ্টা করছি। আমি চাই মানুষ অবসর সময়টাকে বই পড়ার আনন্দের মধ্যে দিয়ে উপভোগ করুক।
উন্মুক্ত পাঠাগারটির বাস্তবায়নকারী সামাজিক সংগঠন ‘আলোর প্রদীপ’ এর সাবেক চেয়ারম্যান এমএম মেহেরুল জানান, ভাল উদ্যোগের সাথে আলোর প্রদীপ সবসময় রয়েছে। এমন একটি ভাল উদ্যোগের সাথে থাকতে পেরে নিজেদের ধন্য মনে করছি। উদ্যোগটি সফলভাবে বাস্তবায়ন হলে এর একটি ইতিবাচক ফল পাবে সাধারণ মানুষ। আমি উন্মুক্ত পাঠাগারটিতে বই দিয়ে সকলের সহযোগতা কামনা করি।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপজেলা খেলাঘরের সভাপতি মহসীন আলী তাহা জানান, এমন একটি মহতি উদ্যোগ নেয়ায় উন্মেষ ও আলোর প্রদীপকে ধন্যবাদ জানান।
উন্মেষ সাহিত্য সাময়িকীর উপদেষ্টা সম্পাদক ও বাঙালি বার্তা সম্পাদক প্রভাষক ইকবাল কবির লেমন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘ বই মানুষের জ্ঞান ভা-ারকে সমৃদ্ধ করে। ইতিবাচক সমাজ গঠনে বই পাঠের বিকল্প নেই।’ তিনি এ পাঠাগারটিকে সার্বিক সহযোগিতা করতে সকলের প্রতি আহ্বান জানান।
যুদ্ধদলিলের বগুড়া জেলা সমন্বয়কারী রাশেদুজ্জামান রণ বলেন, উন্নত বিশ্বে স্টেশন ও যাত্রী ছাউনীতে বই প্রাপ্তি সহজতর হলেও বাংলাদেশে সে ব্যবস্থা নেই। সেক্ষেত্রে সোনাতলায় এমন একটি ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নেয়ায় তিনি সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান।
পাঠাগারের উদ্যোক্তা উন্মেষ সাহিত্য সাময়িকীর সম্পাদক সাজেদুর আবেদীন শান্ত বলেন, ‘আমিসহ অনেকেই বিভিন্ন কাজে নিয়মিত সোনাতলা থেকে বগুড়া বা ঢাকায় যাতায়াত করি ট্রেনে। লক্ষ করে দেখেছি ট্রেন বিলম্ব হওয়াতে অবসর সময় পার করতে খুব বিরক্তিকর হয়। এ বিরক্তি দূর করতে এবং ট্রেনের যাত্রীদের অবসর সময়ে বই ও পত্রিকা পড়ার সুযোগ করে দিতে স্টেশন এলাকায় একটি উন্মুক্ত পাঠাগার স্থাপনের চিন্তা মাথায় আসে। আমার এ চিন্তা চেতনাকে বাস্তবায়ন করতে এগিয়ে আসে সোনাতলার ব্যতিক্রমী সামাজিক সংগঠন ‘আলোর প্রদীপ’। আলোর প্রদীপের সহযোগিতায় ও ভাল কাজে সবসময় সহযোগিতা করেন এমন কিছু মানুষের সমর্থন ও সহযোগিতায় পাঠাগারটি উন্মুক্ত করা সম্ভব হলো।
সোনাতলা রেল স্টেশনে এমন একটি ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নেয়ায় রেল যাত্রীসহ এলাকাবাসীও খুশি।

Check Also

প্রজন্মের কবি সাজেদুর আবেদীন শান্ত’র কবিতার বই ‘আষাঢ়, তুই এবং মৃত্যু’ প্রকাশিত

ইকবাল কবির লেমনঃ প্রজন্মের কবি সাজেদুর আবেদীন শান্ত’র কবিতার বই ‘আষাঢ়, তুই এবং মৃত্যু’ প্রকাশিত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

10 + 17 =